রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন

সেরা ১৫টি নতুন হোটেল

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১৪ মার্চ, ২০২৩
কাজের জন্য হোক আর অবসরে বেড়াতে দেশের বাইরে গিয়ে ভ্রমণপিপাসুরা এখন বুঝেশুনে হোটেল বাছাই করেন। তাদের পছন্দের তালিকায় থাকে বিলাসবহুল সুবিধা, চোখজুড়ানো ইন্টেরিয়র ডিজাইন, ইনস্টাগ্রামের জন্য ছবি তোলার মতো জুতসই রুম ও আরামদায়ক পরিবেশ। ২০১৯ সালে চালু হচ্ছে এমন কিছু চমৎকার হোটেল। তেমন ১৫টি হোটেলের খবর জেনে নিন একঝলকে।

ডব্লিউ ব্রিসবেন

অস্ট্রেলিয়ায় ডব্লিউ ব্রিসবেনের ব্যালকনিতে দাঁড়ালে চোখে পড়বে বিশাল আকাশ ও বিস্তীর্ণ নদী। অস্ট্রেলীয় অনুপ্রাণিত ডিজাইনে সাজানো হয়েছে এর অতিথি কক্ষগুলো। এছাড়া আছে বার ও লোনাজলের আকর্ষণীয় পুল।

রোজউড বাহা মার

ক্যারিবীয় অঞ্চলের দেশ বাহামাসে ভারত মহাসাগরের সাদা বালির সৈকত ক্যাবল বিচে গড়ে উঠেছে রোজউড বাহা মার। ছোট ছোট হ্রদ ঢঙের পুল, ঊষ্ণ জলের বাথটাব আছে এতে। ভ্রমণপিপাসুরা নিরিবিলি পরিবেশে সারি সারি কলা গাছের ছায়ায় সময় কাটাতে পারবেন এখানে।

দ্য মিডেল হাউস

হংকং ভিত্তিক সুওয়্যার হোটেলসের আরেকটি হোটেল হয়েছে চীনের সাংহাই পৌরসভায়। এর নাম দ্য মিডেল হাউস। এটি তৈরি হয়েছে হংকংয়ের ঐতিহ্যবাহী ডিজাইন ও আধুনিকতার মিশেলে। এর অন্যতম আকর্ষণ ৩ হাজার ৮০০টি কাচের টুকরো সমৃদ্ধ বিশাল আকৃতির ঝাড়বাতি।

বেলমন্ড ক্যাডোগ্যান হোটেল

আইরিশ কবি-নাট্যকার অস্কার ওয়াইল্ড যুক্তরাজ্যের লন্ডনে কোলাহলমুক্ত ক্যাডোগ্যান হোটেলে নিয়মিত থাকতেন। এটি ছিল দোতলা। বেলমন্ড ক্যাডোগান নামে নতুনভাবে চালু হচ্ছে হোটেলটি। সংস্কারের জন্য ব্যয় হয়েছে ৪ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার।

হোটেল দে গ্র্যান্ডস বুলভার্ডস

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অর্ধশত কক্ষ নিয়ে গড়ে উঠেছে হোটেল দে গ্র্যান্ডস বুলভার্ডস। প্রতিটিতেই আছে চতুষ্কোণ আলিশান বিছানা, ভেলভেটের সোফা।

দ্য বার্সেলোনা এডিশন

হোটেল মালিক ইয়েন শ্রেইগার এডিশন ব্র্যান্ডের অংশ এটি। স্পেনের অন্যতম জনপ্রিয় শহর বার্সেলোনার রয়েছে ১০০ কক্ষ বিশিষ্ট দ্য বার্সেলোনা এডিশন। অত্যাধুনিক সব সুবিধা, আধুনিক ঢঙের সিঁড়ি, উঁচু সিলিং, ছাদ পুল, রুম বার ও বেজমেন্টে রয়েছে ক্যাবারে অর্থাৎ নাইটক্লাব।

ফেয়ারমন্ট মালদ্বীপ সিরু ফেন ফুশি

মালদ্বীপের এই রিসোর্টে জলের ওপর বাগানবাড়ির আমেজে থাকা যাবে। এছাড়া আছে সৈকতঘেঁষা ঘর। চাইলে রিসোর্ট থেকে বেরিয়ে সাগরে সাঁতার কাটা যাবে। একইসঙ্গে পায়চারি করতে পারবেন বালিয়াড়িতে। এর একপাশে রয়েছে বিস্তীর্ণ বনভূমি। ফলে ফেয়ারমন্ট মালদ্বীপ সিরু ফেন ফুশিতে মিলবে জঙ্গলের ভেতর তাঁবুতে থাকার স্বাদ।

কোমো উমা চাঙ্গু

ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপের উপকূলবর্তী গ্রাম চাঙ্গুতে শিগগিরই চালু হতে যাচ্ছে সেখানকার প্রথম পাঁচতারকা রিসোর্ট। এতে থাকবে ১১৯টি অতিথি কক্ষ। এছাড়া আছে ৩৫০ ফুটের হ্রদ ও ছাদপুলসমৃদ্ধ ১২টি স্যুট।

লেকারওয়াটার বিচ লজ

আফ্রিকানদের কাছে লেকারওয়াটার মানে হলো ‘বিশুদ্ধ পানি’। দক্ষিণ আফ্রিকার ডি হুপ ন্যাচার রিজার্ভের সামুদ্রিক সংরক্ষিত এলাকায় গড়ে উঠেছে পরিবেশবান্ধব বিলাসবহুল ‘লেকারওয়াটার বিচ লজ’। আগামী এপ্রিলে চালু হবে এটি। এতে থাকছে মাত্র সাতটি কক্ষ। এগুলো থেকে সাগর চোখে পড়ে অনায়াসে। কেপটাউন শহর থেকে গাড়িতে তিন ঘণ্টার দূরত্বে লেকারওয়াটার বিচ লজ।

নোবু রাইয়োকান মালিবু

বিশ্বের সবচেয়ে বিশেষ নতুন হোটেলগুলোর মধ্যে নোবু রাইয়োকান মালিবু অন্যতম। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় জাপানের ঐতিহ্যবাহী রাইয়োকানের আদলে তৈরি হয়েছে এটি। এর নির্মাণের নেপথ্যে আছেন বিখ্যাত শেফ নবু মাতুসুহিসা ও হলিউড অভিনেতা রবার্ট ডি নিরো। আসন্ন গ্রীষ্মে হোটেলটি চালু হলে সাগরমুখো পুলে সাঁতার কাটতে পারবেন অতিথিরা।

জুমেইরাহ আল ওয়াতবা ডেজার্ট রিসোর্ট অ্যান্ড স্পা

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে মরুভূমিতে গড়ে তোলা হয়েছে জুমেইরাহ আল ওয়াতবা ডেজার্ট রিসোর্ট অ্যান্ড স্পা। এতে রয়েছে এক হাজার বর্গফুট দীর্ঘ পুল, সতেজ বাগান ও দারুণ ঝরনা। রিসোর্টে মোট ১৩টি বিলাসবহুল ঘর ও পৃথক পুল।

ইন্টারকন্টিনেন্টাল ফু কুওক লং বিচ রিসোর্ট

ইউনেস্কোর বিশ্ব জীবমণ্ডল রিজার্ভের তালিকাভুক্ত ভিয়েতনামের ফু কুওক দ্বীপের সৈকতঘেঁষা এই রিসোর্ট। সাদা বালিই এর অন্যতম আকর্ষণ। এছাড়া আছে একটি স্পা। ইন্টারকন্টিনেন্টাল ফু কুওক লং বিচ রিসোর্ট কর্তৃপক্ষের হ্রদে খোলা আকাশের নিচে বাঁশের তৈরি স্যুটও পাওয়া যাবে এতে। দেখে মনে হবে ভেলা!

ফোর সিজনস রিসোর্ট অ্যান্ড রেসিডেন্সেস নাপা ভ্যালি

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় আগামী গ্রীষ্মে ফোর সিজনস রিসোর্ট অ্যান্ড রেসিডেন্সেস নাপা ভ্যালির দুয়ার খুলবে। বাগানবাড়ির আদলে বানানো এই রিসোর্টে থাকছে ৮৫টি অতিথি কক্ষ। এছাড়া ছয় একর আঙ্গুর বাগানের মধ্যে রয়েছে ২০টি ঘর। রিসোর্টের ওয়াইন বিভাগ দেখভাল করবেন পুরস্কারজয়ী ওয়াইনমেকার থমাস রিভারস ব্রাউন।

দ্য মারে

হংকং ভিত্তিক হোয়ার্ফ হোটেলস ১০০ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় করে মারে ভবনকে বিলাসবহুল নিকোলো ব্র্যান্ডের মান যুক্ত করেছে। এতে আছে থাউজেন্ড থ্রেড কাউন্ট লিনেন ও ১৬ ধরনের বালিশ।

নামিরি প্লেইনস

পূর্ব আফ্রিকার তানজানিয়ায় ২০১৪ সালে সাধারণ তাঁবুর মতো করে শুরু হয়েছিল নামিরি প্লেইনস। তবে মেঝে থেকে শুরু করে এর পুরোটাই নতুনভাবে গড়ে উঠেছে। এ বছরের গ্রীষ্মে পুনরায় চালু হবে হোটেলটি। এখানকার মেঝে থেকে ছাদ অবধি কাচের দরজা, কাঠের সিলিং, পাথরের দেয়াল নজরকাড়া। কপাল ভালো থাকলে চোখে পড়বে চারপাশে ঘুরে বেড়ানো বুনো চিতা!
সূত্র: সিএনএন

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

ভ্রমন সম্পর্কিত সকল নিউজ এবং সব ধরনের তথ্য সবার আগে পেতে, আমাদের সাথে থাকুন এবং আমাদেরকে ফলো করে রাখুন।

© All rights reserved © 2020 cholojaai.net
Theme Customized By ThemesBazar.Com