1. [email protected] : admin2021 :
  2. [email protected] : cholo jaai : cholo jaai
ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৩ অপরাহ্ন

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ

চলযাই ডেস্ক :
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৮ অক্টোবর, ২০২১

২০১১ সালের জানুয়ারি মাসে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ আইবেরিয়ার সাথে একীভূত হয়ে স্পেনের মাদ্রিদে নিবন্ধিত একটি হোল্ডিং সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনস গ্রুপ (আইএজি) তৈরি করে। আইএজি বার্ষিক আয়ের দিক থেকে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম বিমান সংস্থা এবং ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম। এটি লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ এবং এফটিএসইএস ১০০ সূচকে তালিকাভুক্ত রয়েছে। ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ হলো প্রথম যাত্রী এয়ারলাইন যা এক বছরে একক এয়ার রুটে ১ বিলিয়ন ডলারের বেশি আয় করেছে (নিউইয়র্ক-জেএফকে-লন্ডন-হিথ্রো রুটে ২০১৭ এর ১ এপ্রিল থেকে ২০১৮ এর ৩১ মার্চ পর্যন্ত)।

এয়ার ফ্রান্স ও লুফথানসা এয়ারলাইন্সের পরেই ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ ইউরোপ মহাদেশের সব থেকে বড় এয়ারলাইনস। লন্ডন হিথ্রো বিমানবন্দর আর লন্ডন গ্যাটউইক বিমানবন্দর এর প্রধান বিমানবন্দর৷

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ আমেরিকান এয়ারলাইন্স, ক্যাথে প্যাসিফিক, ক্যান্টাস এয়ারলাইনস এবং কানাডিয়ান এয়ারলাইন্সের সাথে ওয়ানওয়ার্ল্ড এয়ারলাইন জোটের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। স্কাইটিম এবং স্টার অ্যালায়েন্সের পরে ওয়ানওয়ার্ল্ড জোটটি তৃতীয় বৃহত্তম হয়ে উঠেছে।

বিমান বহর :

সেপ্টেম্বর ২০২০ অনুযায়ী ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের বহর মোট ২৪৭টি বিমান নিয়ে গঠিত। এর মধ্যে এয়ারবাস এ৩১৯-১০০ রয়েছে ৩৫টি, এয়ারবাস এ৩২০-২০০ রয়েছে ৬৭টি, এয়ারবাস এ৩২০নিও রয়েছে ১২টি, এয়ারবাস এ৩২১ নিও রয়েছে ১০টি, এয়ারবাস এ৩২১-২০০ রয়েছে ১৮টি, এয়ারবাস এ৩৫০-১০০০ রয়েছে ৬টি, এয়ারবাস এ৩৮০-৮০০ রয়েছে ১২টি, বোয়িং ৭৭৭-২০০ ই আর রয়েছে ৪৩টি এবং বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ই আর রয়েছে ১২টি, বোয়িং ৭৮৭-৮ রয়েছে ১২টি, বোয়িং ৭৮৭ – ৯ রয়েছে ১৮টি এবং বোয়িং ৭৮৭-১০ রয়েছে ২টি।

এছাড়া তারা আরও ১০টি এয়ারবাস এ৩২০নিও, ৩টি এয়ারবাস এ৩২১নিও, ১২টি এয়ারবাস এ৩৫০-১০০০ এবং ৪টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ই আর, ১৮টি বোয়িং ৭৭৭-৯ এবং ১০টি বোয়িং ৭৮৭-১০-এর অর্ডার দিয়েছে।

গন্তব্যস্থান :

british_airways
ছবি : ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ 

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসের তথ্য অনুযায়ী ২২৫টি গন্তব্যে দৈনিক তাদের ফ্লাইট পরিচালনা করছে। এর মধ্যে ১৩টি আভ্যন্তরীন গন্তব্য এবং ২১২টি আন্তর্জাতিক গন্তব্য রয়েছে।

যুক্তরাজ্যের মধ্যে যে ১৩টি গন্তব্যে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ চলাচল করে সেগুলো হলো : অ্যাবার্ডিন, বেলফাস্ট সিটি, ক্যামব্রিজ, এডিনবার্গ, গ্লাসগো, ইনভার্নেস, লন্ডন সিটি, গ্যাটউইক, হিথ্রো, স্ট্যানস্টেড, ম্যানচেস্টার, নিউকোয়ে ও নিউ ক্যাসল।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ বিশ্বের যে ৮৪টি দেশের বিভিন্ন গন্তব্যস্থলে চলাচল করে সেগুলো হলো: আলবেনিয়া, আলজেরিয়া, অ্যান্টিগুয়া ও বারবুডা, আর্জেন্টিনা, অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রিয়া, বাহামা, বাহরাইন, বার্বাডোস, বেলজিয়াম, বারমুডা, ব্রাজিল,  বুলগেরিয়া, কানাডা, কেম্যান আইল্যান্ড, চায়না, চিলি, কোস্টারিকা, ক্রোয়েশিয়া, সাইপ্রাস, চেকিয়া, ডেনমার্ক, ডমিনিকান রিপাবলিক, ইজিপ্ট, ফ্রান্স, জার্মানি, ঘানা, জিব্রাল্টার, গ্রিস, গ্রানাডা, হংকং, হাঙ্গেরী, আইসল্যান্ড, ইন্ডিয়া, আয়ারল্যান্ড, ইসরায়েল, ইতালি, জ্যামাইকা।

এছাড়াও জাপান, জার্সি, জর্ডান, কেনিয়া, কুয়েত, লুক্সেমবার্গ, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মাল্টা, মরিশাস, মেক্সিকো, মন্টিনেগ্রো, মরক্কো, নামিবিয়া, নেদারল্যান্ডস, নাইজেরিয়া, নরওয়ে, ওমান, পাকিস্তান, পেরু, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, কাতার, রোমানিয়া, রাশিয়া, সৌদি আরব, সার্বিয়া, সেয়চেলস, সিঙ্গাপুর, স্লোভেনিয়া, সাউথ আফ্রিকা, সাউথ কোরিয়া, স্পেন, সেন্ট কিটস ও নেভিস, সেন্ট লুসিয়া, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড, থাইল্যান্ড, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো, তুর্কী, টারক্স ও কেইকাস আইল্যান্ড, ইউনাইটেড কিংডম, ইউনাইটেড আরব আমিরাত, ইউনাইটেড স্টেটস, জাম্বিয়া ও জিম্বাবুয়েতে সেবা দিয়ে থাকে সংস্থাটি।

সেবাসমূহ :

ইউরোপের অভ্যন্তরে সমস্ত স্বল্প-দূরত্বের বিমানযাত্রীদের জন্য ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের ইকোনমি ক্লাসের কেবিন রয়েছে। হিথ্রো এবং গ্যাটউইক বিমানবন্দর ভিত্তিক বিমানগুলোর সমস্ত ফ্লাইটে মার্কস এবং স্পেনসারের বিস্তৃত খাবারের সাথে অন-বোর্ড শপিং সিস্টেম রয়েছে।

এক্ষেত্রে কেনাকাটা কেবল ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ড ব্যবহার করে বা ফ্রিকোয়েন্ট ফ্লায়ার পয়েন্ট ব্যবহার করেই করা যেতে পারে। ব্রিটিশ এয়ারওয়েজগুলো তার বিমানের বহরজুড়ে ওয়াই-ফাই চালু করছে, ২০২০-এর মধ্যে ৯০ শতাংশ ওয়াই-ফাই সক্ষম হবে বলে আশা করা হচ্ছে। খাবার হিসেবে এই ফ্লাইটে এক বোতল পানির সাথে নিরামিষ বিকল্পগুলোসহ অভ্যর্থনামূলক খাবার দেয়া হয়।

ক্লাব ইউরোপ হলো সমস্ত স্বল্প দূরত্বের বিমানের সংক্ষিপ্ত পর্যায়ের বিজনেস ক্লাস। এই শ্রেণিটি বেশিরভাগ বিমানবন্দরগুলোতে ব্যবসায়িক লাউঞ্জ-এর ব্যবস্থা করে। কিছু ফ্লাইটে বিনোদনের ব্যবস্থাও থাকে। খাবার হিসেবে নাস্তার সাথে সফট ড্রিংকস, জ্যুস, পানি কিংবা চা, কফি বেছে নেয়া যায়।

মাঝারি ও দীর্ঘ ফ্লাইটের বিমানগুলোর ফার্স্ট ক্লাসে স্বল্পসংখ্যক কেবিন রয়েছে, প্রত্যেকটিতে একটি বিছানা, একটি ১৫ ইঞ্চি প্রশস্ত বিনোদন স্ক্রিন রয়েছে। ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের ‘গ্যালারি ফার্স্ট’ লাউঞ্জগুলো কয়েকটি বিমানবন্দরে পাওয়া যায়। হিথ্রো এবং নিউইয়র্ক জেএফকে বিমানবন্দরগুলিতে এক্সক্লুসিভ ‘কনকর্ড রুম’ লাউঞ্জগুলিতে ওয়েটার পরিষেবাসহ প্রি ফ্লাইট ডাইনিং ব্যবস্থা রয়েছে।

এছাড়া ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ নির্বাচিত প্রথম শ্রেণীর ফ্লাইটগুলোতে ভিআর বিনোদন পরীক্ষা করছে, যার ক্যাটালগটিতে টু ডি, থ্রি ডি এবং ৩৬০ ডিগ্রি বিনোদন ব্যবস্থা রয়েছে।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের ফার্স্ট ক্লাসের বার থেকে অ্যালকোহলযুক্ত বা অ্যালকোহলবিহীন পানীয় নির্বাচন করা যায়। ইন-ফ্লাইটে ডাইনিংয়ের মধ্যে বেশ কয়েকটি গরম এবং ঠান্ডা আইটেমসহ প্রি-প্যাকেজযুক্ত বিকল্পগুলোর একটি লা কার্টে মেনু অন্তর্ভুক্ত থাকে। নিরামিষাশী বিকল্প রয়েছে খাবারের তালিকায়।

ক্লাব ওয়ার্ল্ড হলো বিজনেস ক্লাসের কেবিন যা সমস্ত বোয়িং-৭৭৭, বোয়িং-৭৮৭, বোয়িং ৭৪৭-৪০০ এয়ারবাস এ৩১৮, এয়ারবাস এ৩৮০, এবং নির্বাচিত এয়ারবাস এ৩২১ বিমানে দেওয়া হয়। কেবিনে পুরোপুরি রূপান্তরযোগ্য ফ্ল্যাট বিছানার আসন রয়েছে। ২০০৬ সালে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ নেক্সট জেনারেশন নিউ ক্লাব ওয়ার্ল্ড চালু করেছিল, আরও বড় আসন বিশিষ্ট ও বিশেষ সেবা সমৃদ্ধ।

ওয়ার্ল্ড ট্র্যাভেলার প্লাস হলো ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের বিমানের সরবরাহ করা প্রিমিয়াম ইকোনমি ক্লাসের কেবিন। এই কেবিনটি বিস্তৃত আসন, প্রসারিত লেগ-রুম, বড় আইএফই স্ক্রিন, (বেশিরভাগ বিমানের) একটি ফুট রেস্ট এবং পাওয়ার সকেট সরবরাহ করে। তাদের প্রশংসিত ‘ওয়ার্ল্ড ট্র্যাভেলার’ বার আপগ্রেড করা মূল খাবারের কোর্সের সাথে দেয়া হয়।

ওয়ার্ল্ড ট্র্যাভেলার হলো মাঝারি ও দীর্ঘ ফ্লাইটের ইকোনমি ক্লাসের কেবিন। এটি সিট-ব্যাক বিনোদন, অভ্যর্থনামূলক খাবার ও পানীয়, বালিশ এবং কম্বল সরবরাহ করে। এছাড়া ব্যক্তিগত টিভি স্ক্রিন, এসি পাওয়ার আউটলেট এবং ইউএসবি প্লাগ-ইন পয়েন্টগুলি বিমানের প্রতিটি আসন সারিতে দেয়া হয়।

ইকোনমি ক্লাসে অ্যালকোহলযুক্ত এবং অ্যালকোহলবিহীন পানীয়গুলোর একটি নির্বাচন সরবরাহ করে (অ্যালকোহলযুক্ত পানীয়গুলি মিনিয়েচার বা স্বতন্ত্র কোয়ার্টারের বোতল হিসাবে পরিবেশন করা হয়)। খাবার পরিসেবাতে নিরামিষ অথবা আমিষ দুটো থেকে যেকোনো বিকল্প নাস্তা নেয়া যাবে।

পুরস্কার অর্জন :

british_airways
ছবি : বিবিসি ডট কম

বছরের সেরা এয়ারলাইন, ডিসেম্বর ২০১৯ – কাপা (CAPA) এভিয়েশন অ্যাওয়ার্ডস ফর এক্সেলেন্স

শ্রেষ্ঠ স্বল্প দূরত্বের এয়ারলাইন, নভেম্বর ২০১৯ – ট্রাভেল অ্যাওয়ার্ডস

ইউনাইটেড কিংডমের শ্রেষ্ঠ কেবিন ক্রু, অক্টোবর ২০১৮ – স্কাইট্র্যাক্স অ্যাওয়ার্ডস

শ্রেষ্ঠ স্বল্প ও দীর্ঘ দূরত্বের এয়ারলাইন, (২০১৫, ২০১৬) – ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ট্রাভেলার রিডার্স অ্যাওয়ার্ডস

প্রিয় এয়ারলাইন, ডিসেম্বর ২০১৬ – গ্লোব ট্রাভেল অ্যাওয়ার্ডস

ইউরোপের শীর্ষস্থানীয় এয়ারলাইন: ফার্স্ট ক্লাস, অক্টোবর ২০১৬ – ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যাওয়ার্ডস

বছরের সেরা এয়ারলাইন (স্বল্প দূরত্ব), সেপ্টেম্বর ২০১৪ – কন্ডে নাস্ট ট্রাভেলার্স অ্যাওয়ার্ডস

শ্রেষ্ঠ স্বল্প ও দীর্ঘ দূরত্বের এয়ারলাইন, ডিসেম্বর ২০১২ – সানডে টাইমস ট্রাভেল ম্যাগাজিন অ্যাওয়ার্ডস

সুমাইয়া জাকির

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 cholojaai.net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com