বিশ্বের সেরা মধুচন্দ্রিমার স্থান মালদ্বীপ

বিয়ের আগেই অনেকে নির্ধারণ করেন মধুচন্দ্রিমায় যাওয়ার স্থান।

অনেকে যান প্যারিসে, কেউ বা রোমে আবার কেউ প্রেমের নজিরের স্থাপনা তাজমহল দর্শনে। ইন্দোলনেশিয়ার বালি দ্বীপও থাকে তালিকায়।

ইউরোপ, এশিয়া, অস্ট্রেলিয়‍া, আমেরিকার বিভিন্ন পর্যটন নগর যারা এরইমধ্যে ঠিক করে ফেলেছেন তাদেরকে আরেকবার ভেবে দেখার বা এখন যারা করেননি তাদের স্থান নির্ধারণের কাজটি সহজ করে দিয়েছে অনলাইনে বুকিং দেওয়ার সাইট অ্যাগোডা.কম (Agoda.com)।

হোটেল বুকিং দেওয়ার ক্ষেত্রে এশিয়ার শীর্ষস্থানীয় সাইট অ্যাগোডা.কম জানিয়েছে, জরিপে অংশ নেওয়া বিশ্বের ১৫ হাজার জনের ২০ শতাংশ মালদ্বীপকে তাদের মধুচন্দ্রিমার জন্য প্রথম স্থান হিসেবে নির্ধারণ করেছেন। এরপর দ্বিতীয় পছন্দ হিসেবে গ্রিক দ্বীপপুঞ্জ, প্যারিস ও বালি দ্বীপকে রেখেছেন।

২০টি নির্ধারিত স্থানের ওপর এ জরিপটি চালানো হয়। অ্যাগোডার প্রশ্ন ছিল এরকম- জীবনে একবারের জন্য হলেও আপনি বিশ্বের কোথায় যেতে চান বা বিয়ের পর আপনার সঙ্গীকে নিয়ে যেতে চান?

১৫ হাজার অংশগ্রহণকারীর মধ্যে ২০. ৩ শতাংশ মালদ্বীপ, ৭.৮ শতাংশ গ্রিক দ্বীপপুঞ্জ, ৭.৬ শতাংশ প্যারিস, ৭.১ শতাংশ বালি, ৬.৬ শতাংশ হাওয়াই, ৬.৫ শতাংশ ইতালি, ৫.৭ শতাংশ ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জ, ৫.৬ শতাংশ তাহিতি, ৫.২ শতাংশ নিউজিল্যান্ডকে তাদের মধুচন্দ্রিমা করার সম্ভাব্য জায়গা হিসেবে পছন্দ করেছেন।

প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে ঘুরে আসার জন্য ৩.৮ শতাংশ ইস্তাম্বুল, ফুকেত ৩.৫ শতাংশ, ৩.৪ শতাংশ অস্ট্রেলিয়া, ২.৮ শতাংশ প্রাগ, ২. ৭ শতাংশ লাস ভেগাসকে রেখেছেন পছন্দের প্রথম তালিকায়।

নিউইয়র্ক, স্পেন, কানকুন, রিও ডি জেনেরিও, ক্রোশিয়া, মন্ট্রিলসহ রয়েছে অনেকের পছন্দের তালিকায়। তাদের সংখ্যা ২. ৫ এর নিচে।

জুটিদের কাছে মালদ্বীপ আর্কষণীয় কিন্তু বিশ্বব্যাপী এতো জনপ্রিয় তা কল্পনার বাইরে ছিল জরিপকারীদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: