1. b_f_haque70@yahoo.com : admin2021 :
  2. editor@cholojaai.net : cholo jaai : cholo jaai
প্রাচীন ইতিহাস স্থাপত্য ও ঐতিহ্যের স্বাদ পাবেন এই জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩৫ পূর্বাহ্ন

প্রাচীন ইতিহাস স্থাপত্য ও ঐতিহ্যের স্বাদ পাবেন এই জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে

চলযাই ডেস্ক :
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২৭ আগস্ট, ২০২১

আমের ফোর্ট, রাজস্থান

দুর্দান্ত ভারতীয় সংস্কৃতির স্থাপত্যে ঘেরা রাজকীয় ও বিলাসবহুল দূর্গের নাম আমের ফোর্ট। রাজস্থানে বহু দর্শনীয় দূর্গ রয়েছে। রাজপুত রাজা মান সিংহের প্রতিষ্ঠিত এই অতীবসুন্দর দূর্গটি ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় ডেস্টিনেশন। মরুরাজ্যের পাহাড়ের শীর্ষে তৈরি এই বিশালাকার দূর্গে পৌঁছাতে হলে হাতির পিঠে বসতেই হবে। সেই রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা জীবনে ভুলতে পারবেন না। আগেকার দিনে বৃদ্ধ রাজারা হাতির পিঠে চেপে দূর্গে পৌঁছাতেন। দূর্গের অন্দরের দৃশ্য দেখে মুহূর্তে মুহূর্তে শিহরিত হবেন আপনি।

মীনাক্ষী মন্দির, মাদুরাই

মাদুরাইয়ের অন্যতম ও অসাধারণ স্থাপত্যে মোড়া হিন্দু মন্দিরটিতে দেবী মীনাক্ষী অধিষ্ঠিত রয়েছেন। শিব-পত্নী পার্বতীর অন্যতম রূপ হল মীনাক্ষী। জানা যায়, ৬০০ বছর আগে এই মন্দিরটি পাথর খোদাই করে প্রতিষ্ঠিত করা হয়ে। মন্দিরের গায়ে রয়েছে বিভিন্ন দেব-দেবীর মূর্তি ও আরাধ্য দেবীর নানান পৌরাণিক কাহিনি খোদাই করা আছে। মন্দিরের অন্দরে ও বাইরে শিল্পশৈলী দেখে মোহিত হতে হয়।

লামায়ুরু মঠ, লেহ

ভ্রমণপিপাষুদের কাছে লাদাখ-লেহ অত্যন্ত প্রিয় একটি পর্যটনকেন্দ্র। লেহ জেলায় সবচেয়ে আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র হল এই বৌদ্ধমঠটি। তিব্বতের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে এটি অত্যন্ত পবিত্র ও জনপ্রিয় মঠও বটে। দেশের সবচেয়ে পুরনো মঠগুলির মধ্যে এটি অন্যতম। এই মঠের অন্দর থেকে লেহর অপূর্বসুন্দর ল্যান্ডস্কেপ ছবি ধরা পড়বে চোখে। যা এককথায় অবিস্মরণীয়।

বারাণসী ঘাট

দেশের সবচেয়ে ঐতিহাসিক ও ইতিহাস বিজরিত জায়গা হল এই বারাণসী ঘাট। গঙ্গার একদিকে রয়েছে সারি সারি পুরনো ঘাট। আধ্যাত্মিক ভারতের রূপ দেখতে এই ঘাটগুলিতে ভিড় জমান দেশি-বিদেশি পর্যটকরা। এই ঘাটগুলিতেই পাবেন দেশের আধ্যাত্মিকতার দিকগুলি। কারণ পুণ্যলাভের আশায় এই পবিত্র গঙ্গার বুকে অসংখ্য ভক্ত ডুব দিতে আসেন।

খাজুরাহো মন্দির, মধ্যপ্রদেশ

মধ্যপ্রদেশের খাজুরাহো মন্দিরের মাহাত্ম্যের কথা অনেকেরই জানা। ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটে খাজুরাহোর অসাধারণ স্থাপত্যকে ঐতিহাসিক পর্যটন কেন্দ্র বলে ঘোষণা করা হয়। প্রসঙ্গত, খাজুরাহো এলাকায় মোট ৮৫টি স্থাপত্য ছিল, বর্তমানে মাত্র ২৫টি অবশিষ্ট রয়েছে। এই ২৫টির মধ্যে কয়েকটি মন্দির পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 cholojaai.net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com