বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন

পাকিস্তানে নারীর পোশাকে আরবি লেখা, ব্লাসফেমির অভিযোগে উত্তেজিত জনতা

  • আপডেট সময় বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

রোববার পাকিস্তানের পাঞ্জাবের কয়েকটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। যেখানে দেখা যায় একটির রেস্তোরাঁর এক কোণে দু’হাত দিয়ে মুখ ঢেকে একজন নারী বসে আছেন। আর সামনে বিক্ষুব্ধ জনতার ভিড়।

যাদের কেউ কেউ চিৎকার করে তার ‘শার্ট’ খুলে ফেলতে বলছেন। কেউ কেউ বলছেন, যারা ব্লাসফেমি (ধর্ম অবমাননা) করে তাদের শিরশ্ছেদ করা উচিত।

পাঞ্জাব প্রদেশের রাজধানী লাহোরে ওই রেস্তোরাঁয় আসা নারীটির পোশাকে আরবি ক্যালিগ্রাফি ছিল। স্থানীয়দের মধ্যে গুজব ছড়িয়ে পড়ে যে, সেখানে কোরানের আয়াত লেখা।

ফলে, অল্প সময়ের মধ্যেই অনেক বিক্ষুব্ধ লোক জড়ো হয়ে যান সেখানে। উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি।

প্রায় ৩০০ লোক সেখানে ভিড় করেছিল বলে বিবিসিকে জানায় পুলিশ। রোববার স্থানীয় সময় দুপুরে তারা এ ব্যাপারে একটি কল পান।

সহকারী পুলিশ সুপার সাইয়েদা শেহরবানোর নেতৃত্বে একটি দল ছুটে আসে ঘটনাস্থলে। তারা দৃঢ়তার সঙ্গে পরিস্থিতি সামাল দেন।

সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, শেহরবানো রেস্তোরাঁর প্রবেশপথে দাঁড়িয়ে ক্রমশ উত্তেজিত হয়ে ওঠা জনতার মধ্যে শৃঙ্খলা বজায় রাখার চেষ্টা করছেন। পুলিশের ওপর আস্থা রাখতে বলছেন তাদের।

“কেউ আসলে জানত না শার্টে কি লেখা ছিল,” বলছিলেন শেহরবানো।

পোশাকটিতে ক্যালিগ্রাফি করা আরবি হরফে “হালওয়া” শব্দটি মুদ্রিত ছিল। আরবি ভাষায় ‘হালওয়া’ শব্দের অর্থ মিষ্টি। ‘সুন্দর’ অর্থেও ব্যবহৃত হয় শব্দটি।

কিন্তু স্থানীয়রা সেটিকে ভুল করে কোরানের আয়াত ভেবেছিল।

সবচেয়ে দুঃসাধ্য কাজ ছিলো ওই নারীকে নিরাপদে বের করে আনা।"

ছবির উৎস,PUNJAB POLICE FACEBOOK

ছবির ক্যাপশান,“সবচেয়ে দুঃসাধ্য কাজ ছিলো ওই নারীকে নিরাপদে বের করে আনা।”

পুলিশের সহকারী সুপারিটেনডেন্ট শেহরবানো বলেন, “সবচেয়ে দুঃসাধ্য কাজ ছিলো ওই নারীকে নিরাপদে ওই জায়গা থেকে বের করে আনা।”

ভুক্তভোগীকে একটি বোরকার সঙ্গে হিজাবের মতো করে মাথা ও মুখমণ্ডল ঢেকে বের করে নিয়ে আসেন তিনি। এ সময় তাদের বেষ্টন করেছিল পুলিশ সদস্যরা। উত্তেজনামুখর পরিস্থিতিতে একরকম দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তারা।

কট্টরপন্থী দল তেহরিক-ই-লাব্বাইক পাকিস্তান (টিএলপি) এর সমর্থকরা ভিড়ের মধ্যে ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মিজ শেহরবানো জানান, তাকে সমবেত লোকজনের সাথে রীতিমত “আলোচনা” করতে হয়েছিল।

“আমরা তাদের বলি, এই নারীকে আমাদের সাথে করে নিয়ে যাবো, তার কর্মকাণ্ড আইনিভাবে আমলে নেয়া হবে এবং দেশের আইন অনুসারে যদি তিনি কোনো অপরাধ করে থাকেন তবে অবশ্যই তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হবে,” যোগ করেন তিনি।

তাকে একটি থানায় যাওয়া হয়। সেখানে বেশ কয়েকজন আলেমের মতামত নেয় হয়। তারা নিশ্চিত করেন যে, পোশাকের লেখাটিতে আরবি ক্যালিগ্রাফিই ছিল, কোরানের আয়াত নয়।

তখন পুলিশ আলেমদের একটি ভিডিও রেকর্ড করতে বলে। ভিডিওতে তাদের মতামত এবং নারীটি যে নির্দোষ সেটি উল্লেখ করা হয়।

পাকিস্তানে ব্লাসফেমির শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। এমনকি মামলার বিচারের আগেই পিটিয়ে হত্যা করার ঘটনাও আছে।

পাঞ্জাব পুলিশের সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট সাইয়েদা শেহরবানো

ছবির উৎস,PUNJAB POLICE FACEBOOK

ছবির ক্যাপশান,পাঞ্জাব পুলিশের সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট সাইয়েদা শেহরবানো

অবশ্য ওই নারীও ক্ষমা চেয়েছেন।

নিজেকে একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান দাবি করে তিনি বলেন “আমার তেমন কোনো উদ্দেশ্য ছিল না। ভুল বোঝাবুঝির কারণে এটা ঘটেছে। তারপরও যা ঘটেছে তার জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী, এবং নিশ্চিত করে বলছি আর কখনো এমন হবে না।”

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তিনি কেনাকাটা করতে লাহোরে এসেছিলেন এবং দ্রুতই শহর ছেড়ে চলে গেছেন।

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর ধর্ম বিষয়ক উপদেষ্টা তাহির মাহমুদ আশরাফি এক্স (টুইটার) পোস্টে লিখেছেন, ওই নারীর নয়, ক্ষমা চাওয়া ছিল ভিড়ের মধ্যে থাকা পুরুষদের।

এ ধরনের ঘটনা প্রতিনিয়ত বাড়ছে বলে মন্তব্য করেন সাইয়েদা শেহরবানো।

“আমি যদি উচু গলায় কথা না বলতাম এবং জনতাকে আস্থায় নিতে না পারতাম যে আমরা একটা কিছু করব, তবে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারতো… স্রষ্টাকে ধন্যবাদ,” তিনি বলেছিলেন।

এই সহকারী পুলিশ সুপার ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছেন। পাঞ্জাবের পুলিশ প্রধান তার সাহসিকতার জন্য পুরষ্কৃত করার ঘোষণা দিয়েছেন।

ভারতে ব্রিটিশ শাসনামলে প্রথম ব্লাসফেমি আইন হয়। গত শতাব্দীর আশির দশকে সামরিক সরকারগুলোর সময়ে আরও প্রকট হয় এই আইনের ব্যবহার।

সর্বশেষ, গত বছরের আগস্টে কুরআন অবমাননার অভিযোগে পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় শহর জারানওয়ালায় খ্রিস্টানদের গির্জা ও বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়া হয়েছিল।

আসিয়া বিবি
ছবির ক্যাপশান,ব্ল্যাসফেমি আইনে আটবছর কারাগারে থাকার পর আসিয়া বিবি নির্দোষ প্রমাণিত হন। কিন্তু তাকে মুক্তি দেয়া হলে পাকিস্তানে দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়েছিল। পরে তিনি অন্য দেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন।

পাকিস্তানের ব্লাসফেমি আইন কী?

পাকিস্তানের ব্লাসফেমি আইনের অধীনে যারা ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করে তাদেরকে মৃত্যুদন্ড সহ কঠোর শাস্তি দেয়া হয়।

ধর্ম সম্পর্কিত অপরাধের আইন ১৮৬০ সালে ভারতের বৃটিশ শাসকদের দ্বারা প্রথমবার বর্ণিত হয়। পরে ১৯২৭ সালে এটিকে আরো বিস্তৃত করা হয়।

১৯৪৭ সালে ভারত থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার পর পাকিস্তান এই আইনগুলোকে গ্রহণ করে।

প্রাচীন আইন অনুযায়ী, কোনো ধর্মীয় সমাবেশে গন্ডগোল করা, অন্য ধর্মের সমাধিস্থানে প্রবেশ করা, ধর্মীয় বিশ্বাস অপমান করা বা ইচ্ছাকৃতভাবে কোনো ধর্মীয় স্থান বা বস্তু ধ্বংস বা তার ক্ষতি করায় সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদন্ড দেয়া যেতো।

কিন্তু ১৯৮০ থেকে ১৯৮৬ সালের মধ্যে সেনাশাসক জিয়াউল হকের সময় এই আইনে আরো বেশ কয়েকটি ধারা সংযুক্ত করা হয়।

জেনারেল জিয়াউল হক পুরনো আইনটিকে ‘ইসলামিকরণ’ করে পাকিস্তানের সুন্নি মুসলিম ও আহমাদিয়া সম্প্রদায়কে আইনিভাবে বিচ্ছিন্ন করতে চেয়েছিলেন। ১৯৭৩ সালে পাকিস্তানে আহমাদিয়াদের অমুসলিম হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়।

আইন সংযুক্ত নতুন ধারায় ইসলামের কোনো বিশিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে অবমাননাকর মন্তব্য করাকে অবৈধ করা হয়, ‘ইচ্ছাকৃতভাবে’ কোরান অপবিত্র করলে যাবজ্জীবন কারাদন্ড শাস্তির বিধান আনা হয় এবং পরে, নবী মুহম্মদকে অবমাননা করলে যাবজ্জীবন কারাদন্ড বা মৃত্যুদন্ডের বিধানের বিষয়গুলো সংযুক্ত করা হয়।

ব্লাসফেমির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রায় ৪০ জনকে এরই মধ্যে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়েছে পাকিস্তানে- তবে এখন পর্যন্ত কারো দন্ডই কার্যকর করা হয়নি।

ব্লাসফেমির অভিযোগে পাকিস্তানের খ্রিস্টান নারী আসিয়া বিবি আট বছর কারাভোগ করার পর গত বছর মুক্তি পেলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ে এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা তৈরি হয়।

সুপ্রিম কোর্টের রায়ে আসিয়া বিবির দণ্ডাদেশ পরিবর্তিত হয়। আসিয়া বিবিকে কারাগার থেকে ছাড়া হলে তা পাকিস্তানে ব্যাপক সংঘাত তৈরি করে এবং আসিয়া বিবি বাধ্য হন আরেক দেশে আশ্রয় নিতে।

পাকিস্তানের মানবাধিকার কমিশন নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কয়েক দশক যাবত ব্লাসফেমির মামলাগুলো সম্পর্কে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করছে।

তাদের মতে, ব্লাসফেমি আইনের কারণে ভুক্তভোগীদের সিংহভাগই মুসলিম। সংখ্যায় মুসলিমদের পরেই রয়েছে আহমাদিয়া সম্প্রদায়ের মানুষ।

পাকিস্তানের শান্তি ও বিচার বিষয়ক জাতীয় কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৮৭ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত ৭৭৬ জন মুসলিম, ৫০৫ জন আহমাদি, ২২৯ জন খ্রিস্টান এবং ৩০ জন হিন্দুকে ব্লাসফেমি আইনের আওতায় অভিযুক্ত করা হয়েছে।

এসব মামলার বড় একটা অংশই কোরান অপবিত্র করার অভিযোগে করা হয়েছে।

পাকিস্তানের মানুষের একটা বড় অংশ এই আইনের সমর্থন করেন।

বিবিসি

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

ভ্রমন সম্পর্কিত সকল নিউজ এবং সব ধরনের তথ্য সবার আগে পেতে, আমাদের সাথে থাকুন এবং আমাদেরকে ফলো করে রাখুন।

© All rights reserved © 2020 cholojaai.net
Theme Customized By ThemesBazar.Com