1. b_f_haque70@yahoo.com : admin2021 :
  2. editor@cholojaai.net : cholo jaai : cholo jaai
নাফ টুরিজম পার্ক
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৬:২২ অপরাহ্ন

নাফ টুরিজম পার্ক

চলযাই ডেস্ক :
  • আপডেট সময় রবিবার, ২০ জুন, ২০২১

কক্সবাজার টেকনাফে নাফ নদীর মোহনায় জালিয়ার দ্বীপে একটি আন্তর্জাতিক মানের পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তুলবে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) যার নাম হবে নাফ ট্যুরিজম পার্ক।ইতিমধ্যে এই পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তুলতে উন্নয়নকারী নিয়োগে দরপত্র আহŸান করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত বিভিন্ন দেশের সাতটি প্রতিষ্ঠান সেখানে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

জালিয়ার দ্বীপটি নাফ নদীর মাঝখানে অবস্থিত। এর একপাশে মিয়ানমার অপর পাশে বাংলাদেশের নেটং পাহাড়। প্রায় ২৭২ একর আয়তনের এই দ্বীপে দীর্ঘদিন স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা মাছের চাষ করতো। তবে বর্তমানে বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরীর উদ্যোগে দ্বীপটি দখল মুক্ত হয়েছে এবং সেখানে যাওয়ার জন্য একটি সেতুও নির্মান করা হয়েছে। এর জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ৯৫ কোটি টাকা।

২০১৫ সালে বেজার চেয়ারম্যান পর্যটন মন্ত্রনালয় সহ বেশ কয়েকজন সচিবকে দ্বীপটি দেখাতে নিয়ে যান এবং তিনি তাদের তার পরিকল্পনার কথা জানান। তারপরই বেজাকে দ্বীপটি বুঝিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলার জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র অহŸান করা হয়। এতে এখন পর্যন্ত ৭টি কোম্পানি অংশগ্রহন করে। বেজা সূত্র থেকে জানানো হয়েছে, যে সব দেশের কোম্পানি বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে তারা হলো চীন, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড ও ভারতের স্বনামধন্য পর্যটন সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠান। এছাড়া দেশের পাঁচতারকা হোটেলের মালিকরাও জালিয়ার দ্বীপে পর্যটন কেন্দ্র করতে আগ্রহী। বিদেশী কোম্পানিগুলোর সাথে তারা বিনিয়োগ করতে চায়। এজন্য তারা যৌথভাবে দরপত্রে অংশ নেবে।

ঢাকা থেকে জালিয়ার দ্বীপের দূরত্ব ৪৫৬ কি.মি এবং চট্টগ্রাম থেকে ১৮৫ কি.মি। তবে কক্সবাজার বিমানবন্দর থেকে এর দূরত্ব মাত্র ৬০ কি.মি। এই দ্বীপ থেকে সেন্টমার্টিন দ্বীপে যেতে সময় লাগে মাত্র এক ঘণ্টা। দ্বীপটিতে বেজা একটি ঝুলন্ত সেতু নির্মান করেছে। উন্নয়নের দায়িত্ব পাওয়া প্রতিষ্ঠান সেখানে একটি রিসোর্ট করবে। পুরো দ্বীপে থাকবে কেবল কার, ঝুলন্ত রেস্তোরা, ইকো কটেজ, কনভেনসন সেন্টার, সুইমিং পুল, অ্যাকোয়া লেক, ফান লেক, মাছ ধরার জেটি, বিনোদন পার্ক, শিশু পার্ক ইত্যাদি।

নাফ ট্যুরিজম পার্কের সম্ভাব্যতা যাচাই করানো হয়েছে জার্মান ভিত্তিক ইউনিকনসাল্ট নামের একটি কোম্পানিকে দিয়ে। এই সমীক্ষায় দেখা গেছে ২০২১-২২ অর্থ বছরে কক্সবাজারে কমপক্ষে ২৫ লাখ পর্যটক ভ্রমনে আসবে। এর মধ্যে ৩০ শতাংশ যাবে শুধুমাত্র নাফ ট্যুরিজম পার্কে।

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরি বলেন, নাফ ট্যুরিজম পার্ক দেশি বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমনকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দেবে। এটি দেশের পর্যটন শিল্পের উন্নয়নেও বড় ভ‚মিকা রাখবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 cholojaai.net
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com