সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন

কক্সবাজারের জনপ্রিয় রেস্তোরাঁ

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২৪

ভ্রমণ প্রিয় বাঙালির পছন্দের তালিকায় ওপরের দিকে আছে দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত খ্যাত কক্সবাজার। ভ্রমণ পিয়াসু মানুষেরা শুধু যে সৌন্দর্য দেখতে যায় তা নয় বরঞ্চ সেখানকার স্থানীয় রসনাবিলাসেও নজর থাকে। কক্সবাজারে থাকার জন্য বিভিন্ন বাজেটের হোটেল রয়েছে। তার সাথে রেস্তোরাঁও রয়েছে। তবে আলাদাভাবে অবস্থিত কিছু রেস্তোরাঁ তার খাবারের ধরণ এবং মানের কারণে হয়েছে জনপ্রিয়। কক্সবাজার ঘুরে দেখার পাশাপাশি এসব রেস্তোরাঁতে রসনাবিলাস দিতে পারে অসাধারণ কিছু ভালো লাগার অভিজ্ঞতা। তাই কক্সবাজারে ঘোরার পাশাপাশি খাবার তালিকায় রাখা যায় এমন কিছু রেস্টুরেন্টের খোঁজ দেয়া হল এখানে।

পৌষী রেস্তোরাঁ

কক্সবাজারের রসনাবিলাসে একবেলা যাওয়া যেতে পারে ঝাউবন সংলগ্ন হোটেল সায়মন রোডের পৌষী রেস্তোরাঁতে। সামুদ্রিক মাছের পাশাপাশি বাংলা খাবারের জন্য বিখ্যাত এই রেস্তোরাঁ। এখানকার ভর্তা প্ল্যাটার, কালাভুনা, লইট্টা ফ্রাই, পুডিং এবং ফালুদা পর্যটকদের চাহিদার শীর্ষে বেশ আগে থেকেই। কম বাজেটে ভাল খাবারের জন্য পর্যটকরা এখানে একবার ঢুঁ মারতেই পারেন। ফোন- ০১৮৮১২২২৬৬৬

ঝাউবন রেস্তোরাঁ

বর্তমানে কক্সবাজারে দেখা মেলে ফাস্টফুডসহ বিভিন্ন দেশী-বিদেশী রেস্টুরেন্টের কিন্তু ঝাউবন সে তুলনায় বেশ আগে থেকেই এখানকার স্থানীয়দের মধ্যে পরিচিত। মূলত রূপচাঁদা মাছের বিভিন্ন পদের জন্য এই রেস্টুরেন্টটি বিখ্যাত। এছাড়াও রয়েছে বিভিন্নরকম শুটকির আইটেম। ফোন- ০১৮১৯৮২১৯৮৭

হান্ডি রেস্টুরেন্ট

সৈকতের লাবণী পয়েন্ট বিচ রোডে অবস্থিত হান্ডির বিশেষত্ব এখানকার হায়দেরাবাদী বিরিয়ানি। হাঁড়িতে পরিবেশিত এই বিরিয়ানি দেখতে এবং স্বাদে বেশ আকর্ষণীয়। ফোন- ০১৯১৯১৪২৬৩৪

লাইভ ফিস রেস্টুরেন্ট

কক্সবাজারের শৈবাল হোটেলের পাশে অবস্থিত লাইভ ফিস রেস্টুরেন্টের ফিস বারবিকিউ এখানে ঘুরতে আসা অতিথিদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়। ফোন-০১৭৪৭৩৯৪৮০২

তরঙ্গ রেস্টুরেন্ট

বিখ্যাত প্রসাদ প্যারাডাইস হোটেলের পাশে এই তরঙ্গ রেস্টুরেন্টের বসনিয়ান রুটি সহযোগে কোরাল মাছের কাবাব হতে পারে রসনাবিলাসের অন্যতম সঙ্গী।

কয়লা রেস্টুরেন্ট

সিগ্যাল হোটেলের কাছে অবস্থিত কয়লা রেস্টুরেন্টের আচারি চিকেন আইটেমগুলা পর্যটকদের কাছে বেশ সাড়া জাগানো। ফোন- ০৩৪১-৫১৯৯৮

মারমেইড ক্যাফে

এখানকার মারমেইড ক্যাফের খাবারের মধ্য জনপ্রিয় হিসেবে অর্গানিক রাইস বেশ শক্তপোক্ত জায়গা দখল করে আছে। ফোন- ০১৮৪১৪১৬৪৬১ এছাড়া পরিচিত আরও কিছু রেস্টুরেন্টের খবর: কারি লিফ রেস্টুরেন্ট, ওশান প্যারাডাইজ হোটেল, ০৩৪১-৫২৩৭০-৯ ক্যাফে ১৪, লং বিচ হোটেল, ফোন- ০৩৪১-৫১৮৪৩-৬ সাহারা রেস্টুরেন্ট, হোটেল সি প্যালেস, ফোন- ০৩৪১-৬৩৬৯২ সাগরিকা রেস্তোঁরা, হোটেল শৈবাল, ফোন- ০৩৪১-৬৩২৭৪ কাস্তি রেস্তোঁরা, মোটেল লাবনী, ০৩৪১-৬৪৭০৩ নিরিবিলি অর্কিড রেস্টুরেন্ট, কলাতলী রোড, ফোন- ০৩৪১-৬৩১৯৪ বৈশাখী রেস্তোরাঁ, হোটেল শামস প্লাজা, ফোন- ০১৭১১১১৭৮৪৩ প্যাসিফিক বিচ ক্যাফে, কলাতলী সৈকত , ফোন- ০১৭২৪০১৬৬২২

পর্যটন এলাকা বলে কক্সবাজারে খাবার সময় কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। খাওয়ার আগে খাবারের দাম না দেখে নিলে বাজেট ফুরিয়ে যাবার আশঙ্কাও অমূলক নয়। তবে বর্তমানে সরকার বিভিন্ন খাবারের দাম নির্ধারণ করে দেয়ায় পর্যটকদের কিছুটা স্বস্তিও হয়েছে। এর বাইরেও সামুদ্রিক মাছের বিভিন্ন আইটেম বাছাইয়ের ক্ষেত্রে দরদাম করে নিলে ভাল।

বিভিন্ন উৎস থেকে পাওয়া খাবারের দামের মোটামুটি হিসেব অনুযায়ী কক্সবাজারে ভাত ২০-৫০টাকা, ভর্তা আইটেম প্লেট(৮/১০ রকম)- ৭০-৩০০ টাকা, লইট্টা ফ্রাই ১০০-১২০ টাকা, বড় রূপচাঁদা ফ্রাই/রান্না ৩০০-৪০০টাকা, কোরাল মাছ ১৫০ টাকা, বিফ ১৫০-২৫০ টাকা, ডাল ৩০-৫০ টাকা। তবে পর্যটনের সিজনভেদে খাবারের দাম কম-বেশি হতে পারে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

ভ্রমন সম্পর্কিত সকল নিউজ এবং সব ধরনের তথ্য সবার আগে পেতে, আমাদের সাথে থাকুন এবং আমাদেরকে ফলো করে রাখুন।

© All rights reserved © 2020 cholojaai.net
Theme Customized By ThemesBazar.Com