সুপারমুনে আড়াইহাজারে জ্যোৎস্নাবিলাস

রাতের আঁধারে চাঁদের চিকচিক রুপালি আলো কার না ভালো লাগে। আর এই আলোর উজ্জ্বলতা যদি সাধারণ কোনো পূর্ণিমার চেয়ে ৩০ শতাংশ বেশি হয়, চাঁদকে যদি ১৪ শতাংশ বেশি বড় মনে হয় তাহলে কেমন হবে ব্যাপারটা। একবার ভেবে দেখুন তো।

এই স্নিগ্ধ রুপালি আলোয় কোথায় ঘুরতে যেতে ইচ্ছে করছে? তাহলে দুই চোখ পুরো খোলা রেখে চলে যেতে পারেন নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার মেঘনার চরে।

সেখানে পাবেন চারদিকে পানি। মাঝখানের নির্জন চরে বসে রুপালি জ্যোৎস্নার আলোতে ভেসে যাবেন এক মায়াবী ভালো লাগার জালে।

রাতে জ্যোৎস্না বিলাস উপভোগের আগে যেতে পারেন দুপুরে। তখন পাবেন টলমলে পানি। বালুর সৈকত। পানি দেখে নির্ঘাত লাফিয়ে পড়তে ইচ্ছে করবে।

কেউ ইচ্ছে করলে বিশাল ট্রলার ভাড়া নিয়ে ভেসে বেড়াতে পারেন মেঘনার বুকে। রাতে থাকতে পারেন ওই ট্রলারেই। কেউ চাইলে চরে তাঁবু নিয়ে ক্যাম্পিংও করতে পারেন।

আড়াইহাজারে মেঘনার চরের পাশেই আছে আড়াই কিলোমিটারব্যাপী কাশবন। সারা রাত মেঘনায় জেলেরা মাছ ধরেন। লাল লাল বাতি থাকে নদীজুড়ে।
নিরাপত্তা নিয়েও কোনো সমস্যা নেই। নারী, পুরুষ ও শিশু সবাই যেতে পারেন।

কেউ ব্যক্তিগতভাবে যেতে না পারলে দলগতভাবেও যেতে পারেন। দুটি ক্ষেত্রেই আপনারা সেখানকার স্থানীয় বাসিন্দা ট্রাভেলার শাহীনূর আড়াইহাজারীর সহায়তা নিতে পারেন। চাইলে তাঁর ইভেন্টেও যোগ দিতে পারেন। ফেসবুকে বিউটিফুল আড়াইহাজার গ্রুপের পেজে তিনি দুটি ইভেন্ট খুলেছেন। একটি ১৪ নভেম্বর রাতে। আরেকটি ১৮ নভেম্বর রাতে। যে কেউ দুটি বা যেকোনো একটি ইভেন্টে যোগ দিতে পারেন। খরচ হতে পারে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা।

ইভেন্টের মধ্যে থাকবে রাতভর আড্ডা, গান। শাহীনূর আড়াইহাজারীর ভাষ্যমতে, থাকবে এন্টিক খাওয়া-দাওয়া, বার বিকিউ। বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে থাকবে বাঁশিওয়ালার বাঁশির সুর। সঙ্গে জ্যোৎস্না খাওয়া ফ্রি (মনের খোরাক)। ইভেন্টের বিস্তারিত জানতে ফোন দিতে পারেন শাহীনূর আড়াইহাজারীকে ১৬১১২৫২৫০০, ১৭৫৭০৪০৯২৯। ফেসবুকে দেখতে পারেন বিউটিফুল আড়াইহাজারের পেজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: