ভারতে উচ্চ শিক্ষা

বাংলাদেশের নিকটতম প্রতিবেশী ভারতে উচ্চ শিক্ষা গ্রহনের ক্ষেত্রে বর্তমানে ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। এ কারনে প্রতিবছর প্রচুর বাংলাদেশী শিক্ষার্থী উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে ভারতে পাড়ি জমাচ্ছে।

ডিগ্রী সমূহ:

ভারতে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে নিম্নলিখিত ডিগ্রীগুলো প্রদান করা হয়:

  • ডিপ্লোমা
  • ব্যাচেলর
  • মাষ্টার্স
  • ডক্টরেট

আবেদন প্রক্রিয়া:

  • আপনি সরাসরি প্রতিষ্ঠানের অ্যাডমিশন অফিস বরাবর অথবা এডুকেশনাল কনসালট্যান্টস ইন্ডিয়া লি: (Ed. CIL) বরাবর লিখতে পারেন।
  • আপনি প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট থেকেও আবেদন ফরম ডাউনলোড করতে পারেন।
  • আপনি যে বিভাগে ভর্তি হতে চান, সেখানে আবেদন করার শেষ সময়সীমা যাচাই করুন।
  • কিছু বিশ্ববিদ্যালয় অন-লাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে থাকে।
  • অ্যাডমিশন অফিস আপনাকে ভর্তি সংক্রান্ত সব ধরনের তথ্য জানাবে।
  • আপনাকে কমপক্ষে ২ থেকে ৩ মাস সময় হাতে রেখে ভর্তির আবেদনের প্রয়োজনীয় কার্যক্রম শুরু করতে হবে।
  • আবেদনপত্র জমা দেয়ার পর এডুকেশনাল কনসালট্যান্টস ইন্ডিয়া লিমিটেড (Ed.CIL)  আপনাকে সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে অবহিত করবে।

বিভিন্ন কোর্সে ভর্তি হওয়ার শিক্ষাগত যোগ্যতা, ভাষাগত যোগ্যতা ও কোর্সের মেয়াদ:    

কোর্সের নাম

শিক্ষাগত যোগ্যতা

ভাষাগত যোগ্যতা

মেয়াদ

(১) ব্যাচেলর কমপক্ষে ১২ বৎসরের  শিক্ষা সমাপন ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে টোফেল আইইএলটিএস এর ব্যাপারে বাধ্যবাধকতা নেই; তবে আপনাকে অবশ্যই ইংরেজিতে দক্ষ হতে হবে। আপনাকে ইংরেজী দক্ষতা যাচাই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে অথবা আপনাকে কোর্সের একটি বিষয় হিসাবে ইংরেজী রাখতে হবে। সকল আইআইটিতে ভর্তির জন্য JEE পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। ৩-৫ বৎসরের পূর্নকালীন স্টাডি
ডিপ্লোমা কমপক্ষে ১২ বৎসরের শিক্ষা সমাপন

প্রায় ৩ বৎসরের পূর্নকালীন স্টাডি
মাষ্টার্স কমপক্ষে ১৬ বৎসরের  শিক্ষা সমাপন

প্রায় ১-৩ বৎসরের পূর্নকালীন স্টাডি
ডক্টরেট ডক্টরেট ও অন্যান্য পোষ্ট গ্রাজুয়েট ডিগ্রীর ক্ষেত্রে পূর্বতন গ্রাজুয়েট সম পর্যায়ের পরীক্ষার ফলাফল বিবেচ্য

প্রায় ২-৩ বৎসরের পূর্নকালীন স্টাডি

বিষয়সমূহ:

ভারতে একজন শিক্ষার্থী নিম্নলিখিত বিষয়সমূহে অধ্যয়ন করতে পারেন।

  • কৃষি
  • স্থাপত্য
  • মেডিসিন এন্ড সার্জারী
  • তড়িৎ প্রকৌশল
  • রাসায়নিক প্রযুক্তি
  • আইন
  • যন্ত্র প্রকৌশল
  • সঙ্গীত
  • নার্সিং
  • প্রাচ্যদেশীয় শিক্ষা
  • শারিরীক শিক্ষা
  • আয়ুর্বেদ চর্চা
  • টেলিযোগাযোগ প্রকৌশল
  • ভেটেরনারী সায়েন্স এন্ড অ্যানিম্যাল হাজব্যান্ড্রি
  • গ্রন্থাগার বিজ্ঞান
  • সমাজ কর্ম
  • ব্যবসা ব্যবস্থাপনা
  • হোমিওপ্যাথি
  • কম্পিউটার বিজ্ঞান ইত্যাদিসহ আরো অনেক বিষয়।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

  • পূরণকৃত আবেদন ফরম
  • সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্রের সত্যায়িত কপি
  • সর্বশেষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাড়পত্র
  • আবেদন ফি পরিশোধের প্রমানপত্র
  • পাসপোর্টের ফটোকপি
  • (Ed.CIL) এর বরাবর  নয়াদিল্লীতে উত্তোলন যোগ্য একটি অফেরতযোগ্য প্রক্রিয়াকরণ ফি/নিবন্ধন ফি ডি ডি এর মাধ্যমে সংযুক্ত করতে হবে।
  • মেডিকেল সনদ

অন্যান্য তথ্য:

  • শিক্ষা ব্যয়: ভারতে শিক্ষা ব্যয় আপনি যে নির্দিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবেন তার পলিসী অনুযায়ী নির্ধারিত হয়।

জীবনযাত্রার ব্যয়:

  • খাদ্য, বস্ত্র, যাতায়াত ও অন্যান্য খরচ বাবদ মাসিক ১৫০ থেকে ২০০ মার্কিন ডলার প্রয়োজন হবে।

কাজের সুযোগ:

  • ভারতে অধ্যায়নকালীন কাজের তেমন ভাল সুযোগ নেই বললেই চলে। তাই উচ্চ শিক্ষার্থে ভারত গমনকারীদের পর্যাপ্ত পরিমান অর্থ সঙ্গে নিয়ে যাওয়া উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: