বাংলাদেশিদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের গ্লোবাল ইউগ্র্যাড বৃত্তি, বাড়ল আবেদনের সময়

যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনার কোনো সুযোগ না পাওয়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তি দিচ্ছে দেশটির কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। দ্য গ্লোবাল আন্ডারগ্র্যাজুয়েট এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম বা গ্লোবাল ইউগ্র্যাডের আওতায় এই বৃত্তি দেওয়া হয়। ডিগ্রিবিহীন প্রাতিষ্ঠানিক অধ্যয়নের লক্ষ্যে বৈচিত্র্যপূর্ণ জনগোষ্ঠীর বিকাশমান শিক্ষার্থী নেতাদের ১ সেমিস্টার মেয়াদি এই বৃত্তি প্রদান করা হবে। এ বৃত্তির জন্য আবেদন শুরু হয়েছে। আবেদন জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল ২৮ ফেব্রুয়ারি। আবেদনের সময় ১৫ দিন বাড়ানো হয়েছে। এখন আগ্রহীরা ১৫ মার্চ পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। ঢাকার মার্কিন দূতাবাস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গ্লোবাল ইউগ্র্যাড যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব স্টেটের ব্যুরো অব এডুকেশনাল অ্যান্ড কালচারাল অ্যাফেয়ার্সের একটি কার্যক্রম। এর লক্ষ্য হলো কম প্রতিনিধিত্বশীল প্রেক্ষাপট থেকে আসা এবং যুক্তরাষ্ট্রে অধ্যয়নের অন্য কোনো সুযোগ পাননি এমন শিক্ষার্থীদের এ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে উৎসাহিত করা। ২০০৮ সাল থেকে ওয়ার্ল্ড লার্নিং যুক্তরাষ্ট্রব্যাপী কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ২ হাজার ৫০০-এর বেশি গ্লোবাল ইউগ্র্যাড শিক্ষার্থীর ভর্তি প্রক্রিয়া পরিচালনা করেছে।

বর্তমানে স্নাতক–পূর্ব শিক্ষা কার্যক্রমে পূর্ণকালীনভাবে ভর্তি আছেন এবং প্রথম সেমিস্টারের শিক্ষা সম্পন্ন করেছেন, এমন শিক্ষার্থীদের এই বৃত্তি প্রদান করা হবে।আবেদনকারীদের অবশ্যই TOEFL-এ ন্যূনতম 72iBT বা IELTS-এ ৬.০ স্কোর অর্জন করতে হবে

কেন এই বৃত্তি

এ কার্যক্রমে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের মেধাবী শিক্ষার্থীরা স্নাতকপূর্ব পর্যায়ে অধ্যয়নের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে এক সেমিস্টারের জন্য পূর্ণ বৃত্তি পাবেন। ২০২০ সালের শরত (সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর) অথবা ২০২১ সালের বসন্ত (জানুয়ারি-এপ্রিল) সেমিস্টারে এ বৃত্তি দেওয়া হবে। কম প্রতিনিধিত্বকারী ও সুবিধাবঞ্চিত আবেদনকারীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। যেকোনো শিক্ষা বিষয়ে পড়ুয়ারাই এর জন্য যোগ্য হবেন। কম প্রতিনিধিত্বকারী ও সুবিধাবঞ্চিত আবেদনকারীরা অগ্রাধিকার পাবেন এ বৃত্তির ক্ষেত্রে। আবেদনকারীদের আগ্রহ, প্রাপ্যতা এবং সেই সঙ্গে ভর্তির সুযোগ ও তহবিল সংস্থানের ভিত্তিতে এক সেমিস্টারের (প্রায় ৪ মাস) জন্য এই বৃত্তি দেওয়া হবে।

গ্লোবাল ইউগ্র্যাডের আবেদনকারীদের আমন্ত্রণকারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিদ্যমান পাঠ্যক্রম থেকে বাছাই করা স্নাতক–পূর্ব কোর্সের কাজের জন্য পূর্ণকালীনভাবে ভর্তি করা হবে। এর উদ্দেশ্য হলো শিক্ষার্থীদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাস্তবিক আদান-প্রদান এবং যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও শ্রেণিকক্ষের সংস্কৃতির সংস্পর্শে আসার পর্যাপ্ত সুযোগ সৃষ্টি করা। তা ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নতুন পরিবেশে শিক্ষার্থীদের সফলতা নিশ্চিত করতে সহায়তার জন্য আমন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা ও রচনা, বিশ্লেষণী চিন্তাভাবনা, সময় ব্যবস্থাপনা, তথ্য গ্রহণ এবং অধ্যয়ন ও পরীক্ষা দেওয়ার বিষয়ে যথোপযুক্ত পাঠদান হবে। অংশগ্রহণকারীরা আমেরিকান সহসাথিদের সঙ্গে ক্যাম্পাসে অবস্থান করবেন। সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক। তা ছাড়া পাঠদান কার্যক্রম চলাকালে সব অংশগ্রহণকারীকে শিক্ষানবিশি কার্যক্রমে অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হবে।

যোগ্যতার শর্তাবলি
অনধিক ২৫ বছর বয়সী (ন্যূনতম ১৮ বছর) বাংলাদেশি নাগরিক হতে হবে। যুক্তরাষ্ট্র বা অন্য কোনো দেশের দ্বৈত নাগরিক বা স্থায়ী অভিবাসী হতে পারবেন না।

বর্তমানে পূর্ণকালীন স্নাতক–পূর্ব শিক্ষার্থী হিসেবে ভর্তি থাকতে হবে এবং কমপক্ষে এক সেমিস্টারসম্পন্ন অথবা নিজ প্রতিষ্ঠানে ফিরে আসার পর এক সেমিস্টার বাকি থাকতে হবে।
বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে অধ্যয়নে সম্পৃক্ত হওয়ার জন্য ইংরেজিতে লেখা ও কথা বলার ক্ষেত্রে যথাযথ দক্ষতা থাকতে হবে
নেতৃত্বদানের দক্ষতার প্রমাণ থাকতে হবে।
কার্যক্রম শেষে বাংলাদেশে নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে আসার অঙ্গীকার থাকতে হবে।
যুক্তরাষ্ট্রে থাকার পূর্ব অভিজ্ঞতা সামান্য বা নেই এমন হতে হবে।
নিবিড় শিক্ষা কার্যক্রম এবং সমাজসেবায় পুরোপুরি অংশগ্রহণে আগ্রহী ও সক্ষম হতে হবে।
আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে এতে সম্পৃক্ত হওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। বৈচিত্র্যময় প্রেক্ষাপট, ধর্ম ও গোত্র থেকে আসা আমেরিকানদের সঙ্গে জায়গা ভাগাভাগি করে থাকার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে এবং বাংলাদেশ থেকে ভিন্ন সাংস্কৃতিক ও সামাজিক রীতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে সক্ষম হতে হবে।
বর্তমানে স্নাতক–পূর্ব শিক্ষা কার্যক্রমে পূর্ণকালীনভাবে ভর্তি আছেন এবং প্রথম সেমিস্টারের শিক্ষা সম্পন্ন কর প্রার্থীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

আবেদন ফরমের সঙ্গে কি কি থাকতে হবে

আবেদনের প্রথম পাতায় সংযুক্ত একটি পাসপোর্ট আকৃতির ছবি।
আবেদনকারীর পাসপোর্টের উপাত্ত/ছবি সংযুক্ত পাতার একটি কপি।
বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন প্রতিবছরের দাপ্তরিক নম্বরপত্র (ট্রান্সক্রিপ্ট), প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রত্যয়িত অনুবাদসহ।
জাতীয় সাধারণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় সমাপনী পরীক্ষার দাপ্তরিক ফলাফল (এসএসসি/ এইচএসসি/ বিশ্ববিদ্যালয়ের নম্বরপত্র)
আপনার ব্যক্তিগত রচনা (৫০০ শব্দের মধ্যে) এবং অনলাইন ফরমে অন্তর্ভুক্ত প্রশ্নের লিখিত উত্তর (৪০০-৬০০ শব্দের মধ্যে)
অধ্যাপক বা শিক্ষকদের কাছ থেকে দুটি সুপারিশপত্র।

আবেদন করবেন কোথায়

আবেদন শুরু হয়েছে ৪ জানুয়ারি থেকে। আবেদন জমা দিতে হবে ১৫ মার্চ ২০২১, সোমবার বা তার আগে। আবেদন অনলাইনে করতে হবে। কার্যক্রমে নিবন্ধনের জন্য https://webportalapp.com/sp/login/n9bqhdalu1 এই লিংকে যেতে হবে আগ্রহীদের।

আগ্রহীরা এই কার্যক্রমের জন্য যোগ্য কি না, নিশ্চিত হতে আবেদন শুরুর আগে এর শর্তাবলি যাচাই করে নেবেন। মনে রাখতে হবে, যোগ্যতার শর্তাবলি যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অব স্টেট কর্তৃক নির্ধারিত এবং এর ব্যতিক্রম করা সম্ভব নয়। সংক্ষিপ্ত তালিকাভুক্ত প্রার্থীদের আমেরিকান সেন্টারে সাক্ষাৎকারের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হবে।

প্রার্থীদের মনোনয়ন আমেরিকান সেন্টার কর্তৃক করা হলেও কার্যক্রমে অংশগ্রহণের বিষয়টি ওয়াশিংটন ডিসি থেকে চূড়ান্ত অনুমোদন ও তহবিল প্রাপ্যতার ওপর নির্ভরশীল।

আরও তথ্যর জন্য নিচের লিংকগুলো দেখুন—

Student Exchange Programs


www.worldlearning.org/ugrad
https://webportalapp.com/sp/login/n9bqhdalu1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: