শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

ঘুরে আসুন মলদোভা

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২১

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ৫ বছর মলদোভা রোমানিয়ার অন্তর্গত ছিলো। ১৯৪৫ সালে দেশটিকে সোভিয়েত ইউনিয়ন দখল করে নেয়। ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মধ্য দিয়ে মলদোভা স্বাধীন হয়। মলদোভায় অসংখ্য ঐতিহাসিক স্থাপনা ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন রয়েছে। আজ আপনাদের জানাবো মলদোভার সেরা ৮ ঐতিহাসিক স্থাপনা ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সম্পর্কে। আসুন জানা যাক-

১. স্টিফান কেল মেয়ার সেন্ট্রাল পার্ক, চিসিনাউ

স্টিফান কেল মেয়ার সেন্ট্রাল পার্ক মলদোভার রাজধানী চিসিনাউয়ে অবস্থিত। ১৭ একর জায়গা জুড়ে এর অবস্থান। এই চিসিনাউয়ের সবচেয়ে পুরনো পার্ক। পার্কটিতে ৫০ প্রজাতির গাছ রয়েছে। প্রেমিক-প্রেমিকাদের এই পার্কে বেশি ভ্রমণ করতে দেখা যায়।

২. ডেনড্রারিয়াম পার্ক, চিসিনাউ

প্রকৃতিপ্রেমী মানুষের ভ্রমণের জন্য ডেনড্রানিয়ম পার্ক উপযুক্ত জায়গা। পার্কটি ১৯৭৩ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়। গোলাপ, শাপলাসহ আরও নানা ফুল ফোঁটে এই পার্কে। পরিবারের সঙ্গে এই পার্কে দীর্ঘ সময় অবস্থান করার সুবর্ণসুযোগ রয়েছে।

৩. ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল এবং ইটার্নাল ফ্লেম, চিসিনাউ

চিসিনাউ শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত বিখ্যাত দুটি ঐতিহাসিক স্থাপনা ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল এবং ইটার্নাল ফ্লেম। এখানে স্থাপিত ৫টি লাল পিলারকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন রোমানিয়ার অন্তর্গত থাকার প্রতীক হিসেবে বলা হয়।

৪. ক্যাটেড্রালা নাসটিরিয়া ডমনুলুই, চিসিনাউ

চিসিনাউয়ের খ্রিস্টধর্মাবলম্বী মানুষের কাছে অত্যন্দ পছন্দের স্থান ক্যাটেড্রালা নাসটিরিয়া ডমনুলুই। গীর্জাটি অর্থোডক্স খ্রিস্টধর্মাবলম্বীদের দ্বারা পরিচালিত। ক্যাটেড্রালা নাসটিরিয়া ডমনুলুই ১৮৩০ সালে স্থাপিত হয়। এর স্থাপত্য নব্যধ্রুপদী যুগের। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বারবার এই গীর্জায় হামলা করা হয়। পরবর্তীতে অর্থোডক্স খ্রিস্টীয় স্থাপত্যে গীর্জাটি তৈরি করা হয়।

৫. ওল্ড ওরেই, ওরেই

চিসিনাউয়ের উত্তর-পূর্বাংশে অবস্থিত ঐতিহাসিক স্থাপনা ওল্ড ওরেই। এর আশেপাশের অঞ্চলে রয়েছে অসংখ্য প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। রয়েছে সুরক্ষিত দুর্গ। ইতিহাসপ্রেমী পর্যটকরা সহজেই ওল্ড ওরেইয়ে ভ্রমণ করতে আগ্রহী হন।

৬. মুজিউল ন্যাশনাল দে ইটনোগ্র্যাফি সি ইসটোরি ন্যাটুরালা, চিসিনাউ

মলদোভার সবচেয়ে পুরনো মিউজিয়াম মুজিউল ন্যাশনাল দে ইটনোগ্র্যাফি সি ইস্টোরি ন্যাটুরালা। ইংরেজিতে ন্যাশনাল মিউজিয়াম অব ইথনোগ্র্যাফি অ্যান্ড ন্যাচারাল হিস্টোরি বলা হয়। মিউজিয়ামটিতে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার আর্টিফ্যাক্ট সংরক্ষণ করা রয়েছে। মিউজিয়ামের পাশে রয়েছে বোটানিক্যাল গার্ডেন।

৭. সরোকা দুর্গ, সরোকা

সরোকা দুর্গ মলদোভার সরোকা শহরের ঐতিহাসিক স্থাপনা। দুর্গটি ১৪৯৯ সালে স্টিফেন দ্য গ্রেট নির্মাণ করেন। দুর্গটির স্থাপত্য ইউরোপের মধ্যযুগের সময়ের। পর্যটকদের কাছে এটি অনেক পছন্দের জায়গা।

৮. ভালিয়া মরিলর, চিসিনাউ

মলদোভার চিসিনাউ শহরের বুইয়ুকানি শহরে ভালিয়া মরিলর পার্ক অবস্থিত। এইখানে ভালিয়া মরিলর লেক রয়েছে। পার্কটি রবার্ট কুর্জের নেতৃত্বে নির্মিত হয়। এই পার্কে থাকা জলপ্রপাতের জন্য পার্কটি পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় জায়গা।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

ভ্রমন সম্পর্কিত সকল নিউজ এবং সব ধরনের তথ্য সবার আগে পেতে, আমাদের সাথে থাকুন এবং আমাদেরকে ফলো করে রাখুন।

© All rights reserved © 2020 cholojaai.net
Theme Customized By ThemesBazar.Com