কানাডায় স্পাউস স্পন্সরশীপ

আমরা যারা কানাডায় থাকি, তারা প্রায় সবাই জানি যে, একজন নন কানাডিয়ান’কে বিয়ে করলে তাকে স্পন্সর করে কানাডা আনা যায়। কিন্তু অনেকেই জানিনা যে, বিয়ে না করেও স্পন্সর করে প্রিয়সঙ্গী বা সঙ্গীনীকে কানাডায় আনা যায়। সেক্ষেত্রে তাদেরকে বিয়ে না করলেও কমন ল পার্টনারশীপ এ থাকতে হবে। কানাডার ইমিগ্রেশন আইনে এটি শুধুমাত্র প্রযোজ্য। ফ্যামিলি ল বা ট্যাক্স এর জন্য এ ধরনের বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্ক কিন্তু প্রযোজ্য নয়। সুতরাং কনফিউজ করে ফেলবেন না দয়া করে।

কানাডিয়ান ইমিগ্রেশন আইন অনুযায়ী কেউ যদি কারও সঙ্গে একত্রে এক বছর বসবাস করে, তাহলে তারা কমন ল পার্টনার বলে বিবেচিত হয়। এই একত্রে বসবাস যে শুধুমাত্র একজন মেয়ে এবং ছেলের মধ্যেই হতে হবে, তা নয়। এই একত্রে বসবাস কিন্তু একটানা হতে হবে। ব্যবসা বা চাকরির কারণে ছোটখাট বা অল্প সময়ের অনুপস্থিতি গ্রহণযোগ্য হতে পারে। সেই অল্প সময়ের বিচ্ছেদ কতদিনের জন্য আইনসিদ্ধ তার কোন ধরাবাধা নিয়ম নেই। এক্ষেত্রে সিক্সথ সেন্স ব্যবহার করতে হতে হবে।

এই একত্রে বসবাস আবার ফুলটাইম হতে হবে। পার্ট টাইম হলে হবে না। ধরুন দুই সঙ্গীর আলাদা বাসস্থান আছে এবং তারা সপ্তাহে ০৫ দিন একত্রে থাকেন, আর উইক এন্ড করতে যার যার বাসস্থানে চলে যান। এক্ষেত্রে তারা কমন ল পার্টনারশীপ এ আছেন বলে বিবেচিত হবেন না। অর্থাৎ ফুলটাইম কমন ল পার্টনারশীপ এ কোন উইকএন্ড নেই।

কানাডাতে স্পন্সর এর ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে (যিনি স্পন্সরর্ড হবেন) ডকুমেন্ট দিয়ে প্রমাণ করতে যে আপনি যিনি আপনাকে স্পন্সর করবেন তার সাথে ফুলটাইম এবং একবছর একটানা একত্রে বসবাস করেছেন। অনেকে মনে করেন যে, উভয়ের নামে যেহেতু বাড়ি কেনা নাই, তাই তারা আবেদন করতে পারবেন না। এভাবে অনেক সময় নষ্ট করেন।

আরও অনেক ডকুমেন্ট যেমন: ইউটিলিটি বিল অর্থাৎ বিদ্যুত, পানি, টেলিফোন এবং ইন্টারনেট বিল উভয়ের নামে থাকা, জয়েন্ট ক্রেডিট কার্ড এ্যাকাউন্ট, জয়েন্ট ব্যাংক অ্যাকাউন্ট, গাড়ির ইনসিউরেন্স পলিসিতে উল্লেখ থাকা যে, উভয়ে একই ঠিকানায় বসবাস করেন, কানাডা সরকার প্রদত্ত কোন ডকুমেন্ট এ উল্লেখ থাকা যে উভয়ে একত্রে বসবাস করেন ইত্যাদি দিয়েও যথেষ্টভাবে প্রমান করা যায় যে, আপনারা দুইজন একত্রে বসবাস করেছেন। এমনকি বন্ধু বা বান্ধবী যদি রেফারেন্স লেটার দেয় যে, আপনারা একত্রে একটানা একবছর বসবাস করছেন বা প্রায়ই আপনাদেরকে হাত ধরা ধরি করে শপিং মলে যেতে দেখেছেন, তাহলেই হতে পারে।

একবছর পরে যতখুশি তত আলাদা থাকতে পারবেন-সমস্যা নাই, তবে পড়াশুনা বা কাজের জন্য যে আলাদা থেকেছেন সেটি কিন্তু প্রমাণ করতে হবে এবং আরও দেখাতে হবে যে, এই বিচ্ছেদ সময়ে আপনার নিয়মিত চিঠিপত্র লিখেছেন বা একে অপরকে মাঝে মাঝে ভিজিট করেছেন। ঝগড়া বা কোলাহল করে আলাদা থাকলে এই কমন ল পার্টনারশীপ বাতিল হয়ে যাবে।

যাহোক, প্রথম একবছর একটানা একত্রে থাকাটা জরুরি। প্রমাণ করতে হবে যে, আপনারা শুধু একত্রে থাকেননি শুধু, যথেষ্ট ইন্টিমেটভাবে মেলামেশা করেছেন এবং যথেষ্ট বিশ্বস্ত ছিলেন পরস্পরের প্রতি। দুইজনই পরস্পরের কাজে একে অপরকে সাহায্য করতে হবে এবং বন্ধু বান্ধবী বা প্রতিবেশীদের সাক্ষী রাখতে হবে। পরস্পরের ঘনিষ্ট মেলামেশাতে বাচ্চা হলে তো আর কথাই নাই! আরও একটি ভাল প্রমাণ হতে পারে যে, উভয়ের ছবি ঘন ঘন ফেসবুকে পোস্ট করা এবং তাতে যেন লাইক পড়ে সেটির দিকে নজর রাখা।

মো: হাসান সাজ্জাদ ইকবাল, কানাডিয়ান ইমিগ্রেশন কনসালটেন্ট
ইমেইল: info.broadviewimmigration@gmail.com, phone: 6473902668

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: